April 12, 2024 7:43 pm
Home Industry News উৎপাদন বাড়াতে ৬৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে ফু-ওয়াং সিরামিক

উৎপাদন বাড়াতে ৬৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে ফু-ওয়াং সিরামিক

by fstcap

https://sharebiz.net/%E0%A6%89%E0%A7%8E%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A6%A8-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A1%E0%A6%BC%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A7%AC%E0%A7%AB%E0%A7%A6-%E0%A6%95%E0%A7%8B%E0%A6%9F%E0%A6%BF-%E0%A6%9F/?fbclid=IwAR3vGB0OzvLntY-VJmczHIhqi_7k8fWC8IwSsRMmePuSGTvdPj_x8jUZKZI#

Fu Wang Ceramics; FuWang

বিদ্যমান টাইলস প্লান্টের উৎপাদন সক্ষমতা বাড়াতে ৬৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত সিরামিক খাতের কোম্পানি ফু-ওয়াং সিরামিক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের পরিচালনা পর্ষদ। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

প্রাপ্ত তথ্যমতে, কোম্পানিটি গ্রিনফিল্ড প্রজেক্টের আওতায় জমিসহ বিএমআরই প্রকল্পের মাধ্যমে বিদ্যমান তিনটি টাইলস প্লান্টের (লাইন-১, ২ ও ৩) উৎপাদন সক্ষমতা বাড়াবে। এজন্য ৬৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করার কথা জানিয়েছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ। এই বিনিয়োগের ফলে ফু-ওয়াং সিরামিকের দৈনিক উৎপাদনক্ষমতা আনুমানিক ১৫ হাজার স্কয়ার মিটার বৃদ্ধি পাবে। পরিচালনা পর্ষদের এমন সিদ্ধান্ত কার্যকরের জন্য বার্ষিক সাধরণ সভা (এজিএম) বা বিশেষ সাধারণ সভার মাধ্যমে (ইজিএম) শেয়ারহোল্ডারদের অনুমোদন নেবে। আর ওই এজিএম বা ইজিএমের তারিখ, সময়, রেকর্ড ডেট এবং অন্যান্য তথ্য পরে জানানো হবে।

‘বি’ ক্যাটেগরির কোম্পানিটি ১৯৯৮ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। ৫০০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে পরিশোধিত মূলধন ১৩৬ কোটি ২৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা। রিজার্ভের পরিমাণ ১৫ কোটি ৬১ লাখ টাকা। কোম্পানিটির ১৩ কোটি ৬২ লাখ ৬৯ হাজার ৯৩ শেয়ার রয়েছে। মোট শেয়ারের মধ্যে উদ্যোক্তা বা পরিচালকদের কাছে ২৭ দশমিক ৮৩ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর কাছে ৩ দশমিক ৩১ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারীর কাছে শূন্য দশমিক ৪০ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে ৬৮ দশমিক ৪৬ শতাংশ শেয়ার।

এর আগে ৩০ জুন, ২০২১ সমাপ্ত হিসাববছরের জন্য কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ব্যতীত কেবল সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য দুই শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। আলোচিত সময়ে শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৪ পয়সা এবং ৩০ জুন, ২০২১ তারিখে শেয়ারপ্রতি নেট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১১ টাকা ৭০ পয়সা। এই হিসাববছরে শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে ৫১ পয়সা।

এদিকে চলতি হিসাববছরের তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ, ২০২২) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ছয় পয়সা, আগের বছরও একই সময়ে যা ছিল ছয় পয়সা। অর্থাৎ তৃতীয় প্রান্তিকে ইপিএস অপরিবর্তিত রয়েছে। অন্যদিকে চলতি হিসাববছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে (জুলাই, ২০২১-মার্চ, ২০২২) কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ২৩ পয়সা, আগের হিসাববছরের একই সময়ে যা ছিল ২৮ পয়সা। সে হিসেবে আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি ইপিএস কমেছে পাঁচ পয়সা। ৩১ মার্চ, ২০২২ শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নেট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১১ টাকা ৭৮ পয়সা। আর প্রথম তিন প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি নগদ অর্থপ্রবাহ হয়েছে এক টাকা ৬৫ পয়সা (ঘাটতি)।

You may also like