পুঁজিবাজার চাঙ্গা করতে নতুন প্রদক্ষেপ নিলো সরকার

in মার্কেট আপডেটস by

দর পতন ও বিক্রয় চাপের মধ্যে দিয়ে চলছে পুঁজিবাজারের কার্যক্রম। ব্যাংকগুলোর অর্থছাড় থেকে শুরু করে আইসিবিকে প্রনোধণার অর্থও দিয়েছে সরকার। কিন্তু তার পরেও গতি ফিরছে না পুঁজিবাজারে। এমন পরিস্থিতিতে পুঁজিবাজার চাঙ্গা করতে নতুন আদেশ জারি করেছে সরকার।

এবার পুঁজিবাজার চাঙ্গা করতে ভেঞ্চার ক্যাপিটালের ওপর স্ট্যাম্প ডিউটি কমিয়েছে সরকার। এক্ষেত্রে স্ট্যাম্প ডিউটি ২ শতাংশের পরিবর্তে শূন্য দশমিক ১ শতাংশ নির্ধারণ করে মঙ্গলবার (৫ নভেম্বর) অফিস আদেশ জারি করছে অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ।

অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া স্বাক্ষরিত আদেশে বলা হয়, স্ট্যাম্প অ্যাক্ট, ১৮৯৯ তে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সরকার বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন কর্তৃক অনুমোদিত ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ট্রাস্ট চুক্তিপত্র নিবন্ধনের উপর আরোপিত স্ট্যাম্প ডিউটি ২ শতাংশের পরিবর্তে শূন্য দশমিক ১ শতাংশ নির্ধারণ করা হলো।

তবে এটি অনধিক ১০ লাখ টাকা ও সর্বনিম্ন ৫ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বাজার পরিস্থিতি:

সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস বুধবার (৬ নভেম্বর) সূচক বেড়ে শেষ হয়েছে এদিনের লেনদেন কার্যক্রম। এদিন, ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ৫০ পয়েন্ট। গত কার্যদিবস মঙ্গলবার বেড়েছিল ২৫ পয়েন্ট।

এছাড়া, এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩৮৫ কোটি ২৫ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। গত কার্যদিবসে হয়েছিল ৩০৭ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। সুতরাং এক কার্যদিবসের মধ্যে ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে প্রায় ৭৮ কোটি টাকা।

ডিএসইর ওয়েবসাইট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ডিএসই

এদিন ডিএসইতে লেনদেনের শুরুতে সূচক বাড়ে। লেনদেনের শুরু হয় সাড়ে ১০টায়, শুরুতেই সূচক বেড়ে যায়। প্রথম ৫ মিনিটেই ডিএসইএক্স সূচক বাড়ে ১৩ পয়েন্ট। বেলা ১০টা ৪০ মিনিটে সূচক ১১ পয়েন্ট বাড়ে। বেলা ১০টা ৪৫ মিনিটে সূচক গত কার্যদিবসের চেয়ে ২০ পয়েন্ট বাড়ে। বেলা ১০টা ৫০ মিনিটে সূচক ২৩ পয়েন্ট বৃদ্ধি পায়। বেলা ১০টা ৫৫ মিনিটে সূচক ২৯ পয়েন্ট বাড়ে। বেলা ১১টায় সূচক আরও ৩১ পয়েন্ট বৃদ্ধি পায়। বেলা সাড়ে ১১টায় সূচক ৩৭ পয়েন্ট বাড়ে এবং বেলা ১২টায় সূচক ২৩ পয়েন্ট বাড়ে। বেলা ১টায় সূচক বাড়ে ২৭ পয়েন্ট, বেলা ২টায় সূচক ৪৪ পয়েন্ট বাড়ে এবং বেলা আড়াইটায় লেনদেন শেষে ডিএসইএক্স সূচক ৫০ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৭৫৪ পয়েন্টে অবস্থান করে।

অন্যদিকে, ডিএসই-৩০ সূচক ১৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ৬৫৪ পয়েন্টে এবং ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ৮৯ পয়েন্টে। এদিন ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৩৮৫ কোটি ২৫ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

লেনদেন শেষে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ২২১টির, কমেছে ৮১টি এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৪৯টি কোম্পানির শেয়ারের দাম।

বুধবার দাম বৃদ্ধির ভিত্তিতে ডিএসই’র শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় আছে- ন্যাশনাল টিউবস, ব্র্যাক ব্যাংক, জেনেক্সিল, লংকা-বাংলা ফাইন্যান্স, ভিএফএসটিডিএল, স্কয়ার ফার্মা, সিটি ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকস, ফার্মা এইড এবং সোনারবাংলা ইনস্যুরেন্স।

সিএসই

অন্যদিকে, লেনদেন শেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) প্রধান সূচক সিএসসিএক্স ৯৮ পয়েন্ট বেড়ে ৮ হাজার ৭৭৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে। সিএসই-৩০ সূচক ১১৫ পয়েন্ট বেড়ে ১২ হাজার ৭৪৯ পয়েন্টে এবং সিএএসপিআই সূচক ১৬৪ পয়েন্ট বেড়ে ১৪ হাজার ৪৪৫ পয়েন্টে অবস্থান করে।

লেনদেন শেষে সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ১৯ কোটি ৫৬ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

এদিন দাম বাড়ার ভিত্তিতে সিএসই’র শীর্ষ কোম্পানিগুলো হলো- সমরিতা হাসপাতাল, সলভো কেমিক্যাল, এইচআর টেক্সটাইল, ড্যাফোডিল কম্পিউটার, বিপিএমএল, সমতা লেদার, মিরাকেল ইন্ডাস্ট্রিজ, সোনারবাংলা ইনস্যুরেন্স, হাক্কানী পাল্প এবং ইনটেক অনলাইন।

 

source: http://www.sharenews24.com/article/19450/index.html

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*